তারিখ : ৩০ নভেম্বর ২০২০, সোমবার
[ ] [ ] পাঠক সংখ্যা : 1231457


                   ফটোগ্রাফারদের জন্য একটি উন্মক্ত সাইড

পেটের গ্যাসে ভিআইপি কেবিনে জামাই আদরে পিনুর ছেলে

প্রকাশকাল : ২১/২/২০১৬ ৬:৩০:০০ প্রকাশক : মোঃ তাজমুল হক সম্পাদক ভালুকার কন্ঠ পাঠক সংখ্যা : 1357


No Image
Close
পেটের গ্যাসে ভিআইপি কেবিনে জামাই আদরে পিনুর ছেলে
ঢাকা : মধ্যরাতে গুলি করে মানুষ হত্যা মামলার আসামি জোড়াখুনের আসামি বখতিয়ার আলম রনি। তিনি এখন জেলাখানায়। এখবর পুরনো। তবে নতুন খবর হলো কারাবাস এখন আর তার জন্য শাস্তি নয়। রীতিমতো ঘরজামাই বাস চলছে তার! ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের ভিআইপি কেবিনে স্বজনদের সঙ্গে আনন্দেই দিন কাটাচ্ছেন রনি। তিনি সংরক্ষিত আসনের মহিলা সংসদ সদস্য ও আওয়ামী মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক পিুন খানের ছেলে বলেই হয়তো সম্ভব হচ্ছে এসব। পেটে গ্যাসের সমস্যা জনিত কারণ দেখিয়ে গত ১৪ ফেব্রুয়ারি দুপুরে রনিকে ঢামেকে ৭০২ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। তথ্যটি নিশ্চিত করেন ঢামেক পুলিশ ক্যাম্প ইনচার্জ এসআই মোজাম্মেল হক।
তিনি জানান, রনি কারাগারে গ্যাসের সমস্যা এবং পেটব্যাথায় আক্রান্ত হলে কর্তৃপক্ষ তাকে ঢামেকে পাঠায়। প্রথমে ওয়ার্ডে ভর্তি করা হলেও পরে স্বজনদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ভিআইপি কেবিনে স্থানান্তর করা হয়। তিনি এখন ঢামেকে নতুন ভবনের ১০ তলার ১১০ নম্বর ভিআইপি কেবিনে চিকিৎসাধীন।
সরেজমিনে ১১০ নম্বর ভিআইপি কেবিনের সামনে গিয়ে দেখা যায়, দরজার সামনে দু’জন কারারক্ষি অবস্থান করছেন। এসময় ভেতরে ঢুকতে চাইলে তারা বলেন, উপরের নিষেধ আছে। অনুমতি ছাড়া কাউকে ঢুকতে দেয়া হবে না। ভেতরে যেতে হলে অনুমতি নিয়ে আসতে হবে। কথপোকথনের ফাঁকেই দৃষ্টি চলে যায় দরজার সামনে। সেখানে বেশ কয়েক জোড়া চামড়ার সু ও মেয়েদের সেন্ডেল চোখে পড়লো। সেগুলি দেখিয়ে কারারক্ষি আকব্বরের কাছে জানতে চাই, ভেতরে কারা? তিনি বলেন, ভেতরে রনি স্যারের ভাই-বোন ও বউসহ বেশ কয়েক জন আত্মীয়স্বজন।
এতো আত্মীয়স্বজন হৈ হুল্লোর করে আড্ডা দিলে রোগীর সমস্যা হবে না? জানতে চাইলে ওই কেবিনের দায়িত্বে থাকা মেডিকেল অফিসার বলেন, ‘কি আর সমস্যা হবে। তার তো মূল সমস্যা গ্যাসের। আড্ডা দিলে তেমন কোনো সমস্যা নেই।’ আড্ডা দিতে যদি সমস্যা না হয়, তাহলে কি তার হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার প্রয়োজন ছিল? জবাবে মেডিকেল অফিসার বলেন, ‘বড়লোকের কথারে ভাই! আসলে তার যে সমস্যা এর জন্য হাসপাতালে আসা লাগে না।’
তাহলে তাকে রিলিজ দিচ্ছেন না কেন? জবাবে মেডিকেল অফিসার বলেন, ‘রিলিজের বিষয়টাতো কর্তৃপক্ষ দেখে। মনে হয় ওনার (রনির) পরিবার থেকে রাজনৈতিক ভাবে কোনো সুপারিশ করা হয়েছে। তা না হলেতো এমন রোগী ভর্তিই করার কথা না।’ রনির খাওয়ার খোঁজ নিতে গিয়ে জানা যায়, তিনি হাসপাতালের কোনো খাবার খাচ্ছেন না। স্বজনদের আনা পছন্দের খাবারই খাচ্ছেন।
এর আগে ডিবি পুলিশ দাবি করে, পিুন খানের ছেলে বখতিয়ার আলম রনির পিস্তলের গুলিতেই রাজধানীর ইস্কাটনে জোড়া খুনের ঘটনা ঘটে। ওই মামলার তদন্তের কাজও শেষের দিকে। সিআইডির ব্যালিস্টিক পরীক্ষায় দেখা গেছে, নিহতদের গায়ে পাওয়া গুলি ও রনির পিস্তল একই ক্যালিবারের। রনির লাইসেন্স করা পিস্তল থেকেই গুলি বেরিয়েছে বলে প্রমাণিত হয়েছে।
এদিকে বখতিয়ারের বন্ধু কামাল মাহমুদ, মো. কামাল ওরফে টাইগার কামাল এবং জাহাঙ্গীর আলম ভূঁইয়া সাক্ষী হিসেবে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন। জবানবন্দিতে তারা বলেছেন, ঘটনার দিন রাত দেড়টার দিকে তারা সোনারগাঁও হোটেল থেকে বেরিয়ে গাড়িতে ওঠেন। বখতিয়ার বসেন চালকের পাশের আসনে। কামাল মাহমুদসহ তিন বন্ধু পেছনে ছিলেন। প্রথমে জাহাঙ্গীরকে মগবাজার ডাক্তার গলির সামনে নামিয়ে দেয়া হয়। আদালতে কামাল জানান, রাত পৌনে ২টার দিকে নিউ ইস্কাটনে এলএমজি টাওয়ারের সামনে পৌঁছালে গাড়িটি যানজটে আটকে যায়। এতে অতিষ্ট হয়ে বখতিয়ার পিস্তল দিয়ে চার-পাঁচটি গুলি ছোড়েন।
গত ১৩ এপ্রিল রাতে রাজধানীর নিউ ইস্কাটন রোডে এলোপাতাড়ি গুলি চালান এমপি পিনুর ছেলে বখতিয়ার আলম রনি। এতে রিকশাচালক আবদুল হাকিম ও অটোরিকশাচালক ইয়াকুব গুলিবিদ্ধ হন। আহত অবস্থায় ওই দু’জনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করার পর ১৫ এপ্রিল হাকিম এবং ২৩ এপ্রিল ইয়াকুব চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।
এ ঘটনায় নিহত হাকিমের মা মনোয়ারা বেগম গত ১৫ এপ্রিল রমনা থানায় অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামি করে মামলা করেন। পরে সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে একটি প্রাডো গাড়ি (ঢাকা মেট্রো ঘ-৩-৬২৩৯) শনাক্ত করা হয়। ওই গাড়ি থেকে গুলি ছোড়ার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পর চালক ইমরানকে গ্রেপ্তার করে ডিবি। এরপর ইমরানের জবানবন্দিতেই জোড়া খুনের রহস্য উন্মোচিত হয়। মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ গত ২৪ মে মামলাটি তদন্তের দায়িত্ব পাওয়ার পর গত ৩১ মে এলিফ্যান্ট রোডের বাসা থেকে বখতিয়ার আলম রনিকে আটক করে। গত রোববার বিকেলে পিনু খানের ন্যাম ভবনের বাসার গ্যারেজ থেকে গাড়িটি জব্দ করা হয়।

মন্তব্য


বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইন জরিপ

আপনি কি মনে করেন তত্ত্বাবধায়ক ছারা দেশে সর্বজন স্বীকৃত- গ্রহন যোগ্য নির্বাচন করা সম্ভব ?

ভোট দিয়েছেন ২৭ জন

পুরোনো ফলাফল দেখুন

বিজ্ঞাপন